মেনু নির্বাচন করুন

শিরোনাম
বারঘরিয়া ইউনিয়নে মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিচারণা নিয়ে আলোচনা সভা
বিস্তারিত

৪নং বারঘরিয়া ইউনিয়নের মুক্তিযুদ্ধের চেতনা, স্মৃতিচারণা ও বীরগাঁথা নিয়ে আজ ৩ মার্চ বিকাল ৩.০০ ঘটিকায় মহান মুক্তিযুদ্ধের সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন উপলক্ষে ‘মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিচারণ’ শীর্ষক আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করে বারঘরিয়া ইউনিয়ন পরিষদ।

বারঘরিয়া ইউনিয়ন পরিষদ সম্মেলন কক্ষে বারঘরিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মো. হারুন-অর-রশিদের সভপতিত্বে অনুষ্ঠিত এই আলোচনা সভায় অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন বারঘরিয়া ইউনিয়নের বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. শওকত আলী, মো. হাবিবুর রহমান।


বারঘরিয়া ইউনিয়নের আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. আবু সালেহ খোকন, আওয়ামীলীগের সদস্য মো. হযরত আলী, মো. রোজাম আলী, মো. জালাল উদ্দীন ও যুবলীগের সভাপতি মো. তারাজ আলী।

এসময় উপস্থিত ছিলেন, বারঘরিয়া ইউনিয়ন ইউপি সদস্য তাসিকুল ইসলাম, মোঃ আব্দুল মালেক, মোঃ আফজাল হোসেন, সবুজ মিঞা, সবর আলী, মোঃ নাসিম আলী, মো. সেমাজুল ইসলাম, মোসাঃ সুলেখা বেগম, মোসাঃ নাসরিন বেগম পপি, ইউপি সচিব মো. মুখলেসুর রহমান, ইউপি হিসাব সহকারী কাম-কম্পিউটার অপারেটর ও গ্রামপুলিশবৃন্দসহ অন্যরা।

এ সময় বক্তারা বলেন, মুক্তিযুদ্ধ আর বঙ্গবন্ধু একই সূত্রে গাঁথা। বঙ্গবন্ধুর জন্ম না হলে এই দেশের স্বাধীনতা কখনোই আসত না। মুক্তিযুদ্ধে তাঁর অবদান বলে-লিখে শেষ করার মতো না।

এ সময় অনেক বক্তা বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণকে অনুপ্রেরণা হিসেবে নিয়ে যুদ্ধের প্রস্তুতি নেন বলে উল্লেখ করেন।

চেয়ারম্যান মো. হারুন-অর-রশিদ জানান, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করে বলেন, এই যাদুময়ী সম্মোহনী ভাষণটি শুধু বাঙালির নয়, চতুর্থ প্রজন্মের সকল সংগ্রামী জনতার কণ্ঠেরই প্রতিফলন। বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণকে একটি অত্যন্ত মূল্যবান জাতীয় সম্পদ হিসেবে উল্লেখ করে তিনি আরও বলেন, এটি নিয়ে যথাযথভাবে চর্চা করলে মুক্তিসংগ্রাম নিয়ে কোনো দিধাদন্দ থাকবে না এবং মুক্তিযুদ্ধের চেতনা সকল শ্রেনীর মানুষের মধ্যে জাগ্রত থাকবে। অনুষ্ঠানে সকলে কবিতাপাঠ, আবৃত্তি ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান উপভোগ করেন।


ছবি
ডাউনলোড
প্রকাশের তারিখ
03/03/2022
আর্কাইভ তারিখ
30/09/2022